মঙ্গলবার, ২ আগস্ট ২০২১; ৮:১৫ পূর্বাহ্ণ


IELTS এর স্কোর শেয়ার করার পর বেশ অনেকেই জিজ্ঞাসা করেছেন কিভাবে IELTS এর প্রস্তুতি ভালোভাবে নেয়া যায় এবং বিভিন্ন সেগমেন্টে আলাদা আলাদাভাবে স্কোর বাড়ানো যায়। অনেকেই স্পিকিং এর সমস্যা নিয়ে আবার উদ্বিগ্ন ইত্যাদি। যারা IELTS দিতে চান, যারা দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছেন, যারা দিতে ভয় পান এবং যারা দিতে চান না তাদের সবার জন্য কিছু টিপস-

IELTS হলো International English Language Testing System মানে এই পরীক্ষাতে আপনাকে নানাভাবে গুতায়ে-গাতায়ে টেস্ট করবে যে আপনে ইংরেজী ভাষাটা কেমন পারেন। পরীক্ষার মূলত চারটা অংশ থাকে – লিসেনিং, রিডিং, রাইটিং এবং স্পিকিং। এরমধ্যে প্রথম তিনটার পরীক্ষা একইসাথে হয়, স্পিকিংয়ের পরীক্ষাটা হয় ঐ পরীক্ষার আগে অথবা পরে। মেইলে জানিয়ে দিবে ডেট, আমার বেলায় ৫ দিন আগে হইছে।

লিসেনিং 

আপনে যদি বয়রা না হন মানে কানে শুনেন তাইলেই এই পরীক্ষা আপনার জন্য। এইখানকার ঘটনা হলো প্যান প্যান কইরা একজন কথা বলবে, সেইটা শুইনা শুইনা খাতায় আপনারে শূন্যস্থান পূরণ করতে হবে যে ওয়ার্ডটা বলসে ঐটা দিয়ে। লিসেনিংয়ের জন্য সাজেশান হলো মুভি (ইংরেজী মুভি, কারিনা-ক্যাট্রিনা দেখলে কাজ হইব না!) দেখা এবং কিছু শুনতে শুনতে বোঝার ট্রাই করা যে যা বলছে সেটা যদি একটু কম/বেশি স্পিডে বলে তাহলে আপনি ধরতে পারেন নাকি। কিনবা ইংলিশ সিরিজ। অবশ্যই সাবটেইটেল ছাড়া দেখবেন এবং আসলেই কে কি বলে সেটা বুঝেন কিনা আগে দেখেন। যদি বুঝেন তাইলে প্রাকটিস করলেই হবে। আর যদি না বুঝতে পারেন তাহলে আপনাকে এটাতে ২-৩ মাস সময় দিতে হবে।

ব্যাপক হারে ইংলিশ বয়ান শুনতে হবে ইউটিউবে যাতে আপনার কান অভ্যস্ত হয়ে যায়। ক্যামব্রিজের ১২টা বইয়ের একটা সেট আছে IELTS’র জন্য, ঐটাতে প্রতি বইয়ে ৪টা করে ৪৮টা লিসেনিং টেস্ট পাবেন। গূড ইনাফ ফর আ এ্যাভারেজ ইংলিশ লিসেনার। নীলক্ষেতে গিয়ে বললেই হবে, সবাই চিনে।

রিডিং

লেখাপড়া, খালি লেখাপড়া। পড়তে হবে, পড়তে পড়তে চেয়ার-টেবিল থেকে পড়ে যাইতে হবে। এই সেকশনে কোনো শর্টকাট নাই। পড়বেন আর এ্যান্সার করবেন, ভুল হবে, আবার কয়েকদিন পরে সেইম জিনিস পড়ে এ্যান্সার করবেন। এইভাবেই হবে।

টাইম দিতে হবে এই সেকশানে সবচেয়ে বেশি। নো শর্টকাট।

যাদের ইংলিশ বই পড়ার অভ্যাস আছে দীর্ঘদিনের তাদের জন্য এই সেকশন একটু সহজ লাগার কথা। বাকিদের বলবো, প্রতিদিন ৩টা ইংলিশ পেপার পড়বেন। এতে আপনার পড়ার স্পীড বাড়বে। রিডিং এ স্পীড আর একুর‍্যাসি দুইটাই লাগে যদি ৭ এর উপর স্কোর আনতে চান।

রাইটিং

হুমায়ূন আহমেদ ক্যাটাগরি হইলে তো সমস্যা নাই, না হইলেও প্রবলেম নাই। রাইটিংয়ে দুইটা প্রশ্ন থাকেঃ

১) একটা গ্রাফ/স্ট্যাট/ম্যাপ/পাই চার্ট দেখে সেটাকে সামারাইজ করা।
২) কোনো একটা বিষয়ে আপনার মতামত দেয়া এবং সেটা এলাবোরেট করা।

এই টেস্টটায় একই সাথে আপনার কোনো বিষয়কে সামারাইজ করার এবং এলাবোরেট করার ক্যাপাবিলিটি দেখা হয় যথাক্রমে ১ এবং ২ নাম্বার প্রশ্নে। ক্যামব্রিজের বইয়ে রাইটিং টেস্ট আছে, দেখে লিখতে থাকেন। ভুল হোক, সমস্যা নাই, যা মনে আসে লেখেন, ১ নাম্বারের জন্য অল্প কথায় গুছায়ে আর ২ নাম্বারের জন্য বিশদ করে ব্যাখাসহ; তারপরে উত্তরের সাথে নিজেই কমপেয়ার করে দেখেন আপনার লেখাটার কোয়ালিটি। লিখতে লিখতেই লেখা ঠিক হবে। এছাড়া রাইটিং এর জন্য দুইটা ইউটিউব চ্যানেলে আমি ফলো করেছি-

  1. https://www.youtube.com/user/ieltsliz
  2. https://www.youtube.com/channel/UCglDIsg_Z9mE2oT9hsrbzFA

দুইটা চ্যানেলই দারুন। একদম সোজাভাবে বুঝানো আছে কিভাবে কি করতে হবে। সময় করে দুই চ্যানেলের ভিডিও গুলা দেখেন আর নিজের লেখার সাথে তুলনা করে দেখেন কোথায় কোথায় ঘাপলা আছে। যাদের লেখা লেখির অভ্যাস কম, তাদের এখানে সময় দিতে হবে। এই সেকশনে সবথেকে কম নম্বর আসে গ্লোবালি।

স্পিকিং

যেটা হুদাহুদিই সারাদিন করেন এবং কইরা আশেপাশের সবাইরে বিরক্ত করেন। এইবার সেইটা করতে হবে ইংরেজীতে। স্পিকিংয়ের জন্যও ইংরেজী মুভি দেখতে পারেন, তবে সবচেয়ে ভালো হলো নিজের সাথে নিজেই ইংরেজীতে প্রশ্ন এবং উত্তর দেয়া। আপনিই প্রশ্ন করবেন আপনাকে, আপনিই উত্তর দিবেন। প্রথম সপ্তাহে যুতমতো হবে না, পরের সপ্তাহেও হবে না, তারপরেও হবে না। এইভাবে হতে হতে মাসখানেক/দেড়েক পরে ঠিকই হবে। না হয়ে যাবে কই।

এর জন্য একটা ভালো ইউটিউব চ্যানেল-
https://www.youtube.com/channel/UCKrhTJTTUp9Kx2KEoxGp2QA

স্পিকিং কে সবাই ভয় পায় IELTSএ, আসলে আমাদের সমস্যা হলো আমরা প্রশ্ন ঠিকমতো বুঝতে পারি না ইংরেজীতে। এইজন্য স্পিকিংয়ের জন্য সবচেয়ে বেশি দরকার ভালো লিসেনিং ক্যাপাবিলিটি, প্রশ্ন শুনে কি জানতে চাইসে সেটা বুঝতে পারা।

আর একটা সমস্যা আছে, মনের কথা পরীক্ষার সময় সামনা সামনি বলতে গেলে অনেকেই তোতলামি করে, কেউ আবার শব্দ ভুলে যায়। এখানে ভালো করতে হলে আপনাকে অনেক প্রাকটিস করতে হবে। নিজের লেভেল আগে দেখেন। যদি মনে হয় একদমই কথা বের হচ্ছে না তাইলে কোচিং করতে পারেন ব্রিটিশ কাউন্সিলে, নাইলে কোন দরকার নাই। যাদের অল্প সল্প কথা বের হয়, তাদের শুধু প্রাকটিস দরকার।

স্পিকিং দেয়ার সময় মাথায় রাখবেন, অন্য প্রান্তে যে বসে আছে সে আপনার থেকে ব্যতিক্রম কিছু শুনতে চায়। ভাত খাই, ডাল খাই, টয়লেট যাই টাইপের বয়ান দিয়ে স্কোর ৬ এর উপর আশা করা ভুল। আর ভুলেও মুখস্ত উত্তর দিবেন না। এটা ধরবে এবং আপনার নাম্বার কাটবে।

আমি যে বইগুলা ফলো করেছি-

  1. Cambridge English IELTS 6-12 ( Academic- for foreign studies)
  2. Academic writing practice for IELTS – Sam Mccarter ( For writing part)
  3. Listening & Speaking skills- Barry Cusack & Sam Mccarter
  4. IELTS practice tests- Plus 3 : Margaret Matthews and Katy Salisbuty ( Model test book)

(সবগুলো বই-ই নীলক্ষেতে পাবেন)

শেষ কথা, একেকজনের প্রস্তুতির সময় একেকরকম হয়। এটা নির্ভর করে বেসিকের উপর। সবার আগে যেকোনো জায়গায় গিয়ে ২-৩ টা মক টেস্ট দিবেন। তাহলেই নিজের বেসিক বুঝে যাবেন।। আমি বই এক মাসে আগে কিনলেও সিরিয়াসলি পড়েছি পরীক্ষার আগের ৬ দিন। ৮ ব্যান্ড স্কোর অনেক ভালো স্কোর, ভাবি নাই প্রথম বারেই আসবে যেখানে বাংলাদেশে এভারেজ স্কোর আসে ৬.৫-৭। আপনারা আবার আমার কথা শুনে ১ সপ্তাহের প্রস্তুতিতে পরীক্ষা দিতে যাবেন না। পরে স্কোর কম আসলে মেজাজ টং হয়ে যাবে। নিজের অবস্থা বুঝে সময় নিয়ে রেজিস্ট্রেশন করবেন।

সম্পর্কিত লেখা


আরও পড়ুন