শনিবার, ২ জানুয়ারি ২০২১; ১২:১০ পূর্বাহ্ণ


জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্যের নাম ফারজানা ইসলাম। তার পৈতৃক বাড়ি শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলায়। যদিও তার জন্ম ঢাকাতে ১৯৫৮ সালে। চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি হলেন সবার ছোট। বাবা আব্দুল কাদের ঢাকা হাইকোর্টের ডেপুটি রেজিস্ট্রার এবং মা ফাতেমা খাতুন ছিলেন গৃহিনী।

ফারজানা ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে ১৯৮০ সালে অনার্স ও মাস্টার্স পাস করেন। ২০০১ সালে সাসেক্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি পান।

তার শিক্ষকতা জীবনের শুরু হয় ১৯৮২ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগে যোগদানের মধ্য দিয়ে। ১৯৮৬ সালে তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। ধীরে ধীরে হন এন্থ্রোপলজি ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান।

উপাচার্য নির্বাচনের ভোটাভুটিতে নৃবিজ্ঞানের অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম এবং পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক আবুল হোসেন দুজনই পান ৪০ ভোট। পরে লটারির মাধ্যমে ফারজানা ইসলামকে প্রথম ঘোষণা করা হয়। ২০১৪ সালের ২রা মার্চ তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পান। বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম নারী উপাচার্য তিনি। দায়িত্ব পেয়ে অধ্যাপক ফারজানা সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা দল-মত নির্বিশেষে সকলে মিলে জাহাঙ্গীরনগরকে একটি সুন্দর বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে গড়ে তুলব। আমরা ভিন্ন মতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আমাদের প্রশাসন দল-মত নির্বিশেষে সকলের প্রতি ন্যায়সঙ্গত আচরণ করবে।”

শিক্ষকতার পাশাপাশি ‘নাগরিক উদ্যোগ’ নামে বেসরকারি একটি সংস্থার চেয়ারপারসন হিসাবেও দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

২০১৪ সালে অনন্যা শীর্ষ দশ পুরস্কার পান তিনি। তার সাথে একইসময় এই পুরস্কার পায় পর্বতারোহী ওয়াসফিয়া নাজরিন, কন্ঠশিল্পী ফরিদা পারভীন, অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন, ক্রিকেটার সালমা খাতুন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন সাদেকা হালিম সহ প্রমুখ।

ভিসি ফারজানা ইসলাম এবছর আলোচনায় আসে ছাত্রলীগের সভাপতি শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক রাব্বানীর পদত্যাগের কুশীলব হয়ে। ১ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা থেকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগকে এক কোটি এবং শাখা ছাত্রলীগকে এক কোটি টাকা দেয়ার অভিযোগ উঠার পরই জাবি ভিসি ও তার পন্থী শিক্ষকরা তা অস্বীকার করেন। শুরু হয় ভিসির বিরুদ্ধে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন’। আন্দোলন জোরদার হলে ছাত্রলীগের সাথে বৈঠকের কথা স্বীকার করলেও টাকা লেনদেনের বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

ভিসি অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে পারিবারিক বিলাসিতার অভিযোগ সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর। অভিযোগগুলো হলো :

(১) তার জন্য একটি গাড়ি বরাদ্দ থাকলেও তিনি বর্তমানে তার পরিবারের জন্য আরো অতিরিক্ত দুটি গাড়ি ব্যবহার করছেন। এসব গাড়ির তেল খরচ বিশ্ববিদ্যালয়কেই বহন করতে হয়।

(২) ২০১৭ সালে ভিসির স্বামী বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি নিয়ে নেত্রকোনায় দুর্ঘটনার শিকার হলে সেই গাড়ি মেরামত বাবদ পরিবহন অফিসকে দেড় লাখ টাকা খরচ করতে হয়।

(৩) নতুন যুক্ত হওয়া দুটি অ্যাম্বুলেন্স ভিসি ছাত্রদের না দিয়ে নিজের কাছে রেখেছেন। শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দ তিনটি অ্যাম্বুলেন্সের একটি সবসময় নষ্ট থাকে। ফলে দুটি দিয়ে চাপ সামাল দেয়া বেশ কষ্টসাধ্য। কিন্তু ভিসির বাসায় থাকা দুটি অ্যাম্বুলেন্স সবসময় বসে থাকে, জরুরি প্রয়োজনেও তা পাওয়া যায় না। তবে একটি অ্যাম্বুলেন্স শিক্ষকরা ভিসির অনুমতিক্রমে ব্যবহার করতে পারেন।

(৪) ভিসির বাসভবনের সামনের মাঠ তার ছেলে প্রতীক হোসেন নিজের দখলে রেখেছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। ওই মাঠে শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করতে পারেন না। তবে তার ছেলে ওই মাঠে নিয়মিতই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজন করে থাকেন।

(৫) পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসিদের স্ত্রীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহিলা ক্লাবের সভাপতি হয়ে থাকেন। কিন্তু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি মহিলা হওয়ায় তার স্বামী আখতার হোসেনকে মহিলা ক্লাবের সভাপতি বানিয়েছেন।

সোমবার সন্ধ্যা থেকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের বাসভবন অবরোধ করে রাখে আন্দোলনকারীরা। মঙ্গলবার সকালে তাদের কর্মসূচিতে অতর্কিত হামলা চালায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। হামলার সময় পুলিশ ও ভিসিপন্থী শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে ভিসি জানান, “আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর কোনো হামলা হয়নি। ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সুশৃঙ্খলভাবে আন্দোলনকারীদের আমার বাসভবনের সামনে থেকে সরিয়ে দিয়েছে। আন্দোলনকারীদের পেছনে জামায়াত-শিবির রয়েছে। তারা গত কয়েকদিন ধরে আমাকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে। আমি বের হতে পারিনি। আমি এখন অফিস করব।”

সম্পর্কিত লেখা


আরও পড়ুন