, ২০ জুন ২০২১; ১:০৬ পূর্বাহ্ণ


টিনশন ফি সংক্রান্ত নতুন নিয়ম চালু করতে যাচ্ছে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, অসন্ত্বোষ শিক্ষার্থীদের মাঝে!

গতকাল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় তাদের স্প্রিং ২০২০ এর একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশ করেছে। ক্যালেন্ডার ঘেটে দেখা যায় টিউশন ফি ও কোর্স রেজিষ্ট্রেশন নিয়ে বেশ কিছু নতুন নিয়ম সংযুক্ত ও পুরোনো কিছু বিষয় পরিবর্তন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টি।

বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে নতুন নিয়মে নতুন সেমিস্টারের ক্লাস শুরুর দিনটিই নিয়মিত পদ্ধতিতে সেমিস্টার ফি দেয়ার শেষ দিন অর্থাৎ ক্লাস শুরুর আগেই সেমিষ্টারের পুরো টাকা পরিশোধ করতে হবে। ( ক্লাস শুরু ২০ জানুয়ারি এবং সেমিস্টার ফি দেয়ার শেষ দিনও ২০ তারিখ)

ইতিমধ্যে অঘোষিত পদ্ধতি ( TBA) তে শিক্ষার্থীরা কোর্স রেজিষ্ট্রেশন করে থাকেন, এই পদ্ধতিতে ক্লাস শুরু আগে একজন শিক্ষার্থী কোন শিক্ষকের কাছে কোর্স করছেন তা জানার সুযোগ নেই। এই পদ্ধতি নিয়ে আপত্তি থাকলেও বিগত সেমিস্টারে ক্লাস শুরু ২-৫ দিন পর পর্যন্ত সেমিষ্টার ফী দেয়া এবং ক্ষেত্রবিশেষে “রিএডভাইজ” করার সুযোগ থাকায় শিক্ষার্থীরা চাইলে কোর্স ড্রপ কিংবা শাখা পরিবর্তন এর সুযোগ পেত।

নতুন নিয়মে কোর্স ড্রপের শেষ তারিখ ক্লাস শুরু আগেই দেয়া হয়েছে, ২০ তারিখ ক্লাস শুরু হলেও এডভাইজিং এবং রিএডভাইজিং এর শেষ তারিখ ১৯ জানুয়ারী। সুতরাং শিক্ষার্থীদের জন্য এক্ষেত্রে কোন সুযোগই রাখা হয়নি।

এছাড়াও ক্লাস শুরুর দিন থেকে কোর্স ড্রপে ৫০% টাকা কেটে রাখা হবে, যার শেষদিন ২৭ তারিখ। এর অর্থ একজন শিক্ষার্থী ক্লাস শুরুর পর মাত্র ৭ দিন পর্যন্ত ৫০% টাকা রিফান্ড পেতে পারে। ৭ দিন পর ড্রপে ১০০% টাকা কেটে রাখা হবে।

১০০% রিফান্ডে কোর্স ড্রপের কোন সুযোগই আর রাখা হচ্ছে না শিক্ষার্থীদের জন্য। কোন শিক্ষার্থী কোর্স ড্রপ করতে চাইলে ক্লাস শুরুর ৭ দিন ( যেকোন কোর্সে সর্বোচ্চ ২ টি ক্লাস) পর্যন্ত ৫০% রিফান্ডে ড্রপ দিতে পারবে, এরপর পুরো ১০০% টাকাই কেটে নেয়া হবে৷

এধরনের নিয়মকে অযৌক্তিক বলে দাবী করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির সাধারন শিক্ষার্থীরা। তারা বলেছে এর মাধ্যেম আসলে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা বানিজ্যের দিকটি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে৷

নতুন এই নিয়ম বাতিল না হলে আন্দোলনের হুমকি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা।

সম্পর্কিত লেখা


আরও পড়ুন