মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১; ৪:২২ অপরাহ্ণ


অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের মানবাধিকার নিয়ে সরব এক ব্রিটিশ এমপিকে বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠিয়েছে ভারত।

ডেবি আব্রাহাম নামে ওই ব্রিটিশ সংসদ সদস্যকে সোমবার দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়। কাশ্মীর বিষয়ক ব্রিটিশ অল পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপের চেয়ারম্যান তিনি।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, সোমবার সকাল ৯টার দিকে দিল্লি বিমানবন্দরে অবতরণ করেন ডেবি আব্রাহাম। এ সময় ইমিগ্রেশন থেকে তাকে বলা হয়, আপনার ই-ভিসা বাতিল করা হয়েছে। পরে এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ বিমানবন্দরে তাকে আটকে করে রাখে।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষ অপরাধীর মতো আচরণ করেছে অভিযোগ করে সোমবার সকালে দিল্লির ব্রিটিশ হাইকমিশনের দ্বারস্থ হন ব্রিটিশ ওই সংসদ সদস্য। যদিও এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

গত বছরের ৫ আগস্ট ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মীরের স্বায়ত্ত্বশাসনের মর্যাদা বাতিল করে এককভাবে ভারতের সঙ্গে একীভূত করে নেয়। ডেবি আব্রাহাম শুরু থেকেই এর বিরুদ্ধে সমালোচনা ও প্রতিবাদ করে আসছিলেন।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে ব্রিটিশ দূতাবাসে পাঠানো এক চিঠিতে ডেবি আব্রাহাম জানান, সোমবার সকালে দিল্লি বিমানবন্দরে অবতরণ করার পর ইমিগ্রেশন থেকে তাকে বলা হয়, আপনার ই-ভিসা বাতিল করা হয়েছে। অন্য সব যাত্রীদের মতো যাবতীয় নথি দেখালেও কর্তৃপক্ষ তা মানতে রাজি নয়।

ওই নারী এমপি বলেন, ইমিগ্রেশনের একজন কর্মকর্তা নিজের মতো করে আমার নথি পরীক্ষা করেন। এরপর মাথা নাড়িয়ে বলেন, আপনার ই-ভিসা বাতিল হয়েছে। এরপর আবার পরীক্ষা করতে আমার পাসপোর্ট নিয়ে ওই কর্মকর্তা উধাও হয়ে যান। ১০ মিনিট পর ফিরে এসে আমাকে ধমকের সুরে বলেন, আসুন আমার সঙ্গে।

তিনি বলেন, এরপর আমি ওই কর্মকর্তার আচরণের প্রতিবাদ করি। তারপর ওরা আমাকে একটা ঘেরা জায়গায় নিয়ে বসতে বলি। দেখি ওখানে লেখা ডিপোর্টেড সেল। আমি বুঝতে পারছিলাম না ওদের উদ্দেশ্য। তাই আমি দাঁড়িয়ে থাকি এবং চাইছিলাম বিমানবন্দরের অন্য যাত্রীরা আমাকে দেখুক।

ডেবি আব্রাহামের ভারতে প্রবেশাধিকার কেন প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে এবং তার ভিসা কেন বাতিল করা হয়েছে তার কোনো কারণ দেখান নি বিমানবন্দর কর্মকর্তারা। ২০২০ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত আব্রাহামের ভারতীয় ভিসার মেয়াদ রয়েছে।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ভিসা প্রত্যাখ্যান করার পর তিনি দিল্লি থেকে দুবাই চলে যান। সেখান থেকে ব্রিটেনে ফিরবেন।

সম্পর্কিত লেখা


আরও পড়ুন