মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১; ৭:৪৫ পূর্বাহ্ণ


Photo: তিতাস গ্যাসের সহকারী ব্যবস্থাপক পদে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের তালিকা। 

ডেস্ক রিপোর্টঃ সারাদেশে যেখানে ছাত্রসমাজ বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থার সংস্কার নিয়ে আন্দোলন করছে সেখানে সর্বশেষ প্রকাশিত সবগুলো সরকারী চাকুরির ফলাফলেই মুক্তিযোদ্ধা কোটার আধিক্য দেখা যাচ্ছে। কোথাও কোথাও দেখা যাচ্ছে কোন আইন-কানুন ও বিধি-বিধানের তোয়াক্কা না করেই মুক্তিযোদ্ধা কোটার প্রয়োগ করা হচ্ছে।

এমনই একটি ফলাফল বাংলাদেশ সরকারের একটি বিভাগ তিতাস গ্যাসের সহকারী ব্যবস্থাপক(সাধারণ) পদের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল। এই ফলাফলে দেখা যাচ্ছে যে, সাধারণ কোটার ৫ জন উত্তীর্ণ প্রার্থীর বিপরীতে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ১১ জন এবং ৪ জনের বিপরীতেও মুক্তিযোদ্ধা কোটায় উত্তীর্ণ ১১ জন। অর্থাৎ মুক্তিযোদ্ধা কোটায় সাধারণ কোটার চেয়ে দ্বিগুণের বেশি উত্তীর্ণ। এই ফলাফল বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, বাংলাদেশে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থার কোন আইনেই এটি সিদ্ধ নয়। সহকারী ব্যবস্থাপক পদের এই লিখিত পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে ইতিমধ্যেই সাধারণ শিক্ষার্থীরা তীব্র ক্ষোভ প্রদর্শন করছে। 

একজন আন্দোলনকারীর মতে- “মুক্তিযোদ্ধা কোটার অতিপ্রয়োগে অনেকেরই অটো গালাগালি চলে আসবে। কারন সাধারণরাই তো হাজার হাজার আবেদন করেছিলেন বেকারত্বের ঝুলি থেকে পয়সা খরচ করে। কিন্তু বেলাশেষে প্রতারিত তারা। মনে মনে বা নিজ ভুবনে গালি দেওয়া ছাড়া,নিভৃতে অশ্রু বিসর্জন ছাড়া তাদের আর কি ই বা করার আছে। তাই সেই গালির হাত থেকে,সেই ক্ষোভের হাত থেকে মুক্তিযুদ্ধকে রক্ষা করতেই মুক্তিযোদ্ধা কোটাটির আপাদমস্তক সংস্কার কিংবা বাতিল করতে হবে। যে অন্যথা বলবে সে আসলে গোষ্ঠীতন্ত্রের প্রতিভূ, সকলের আপনজন নয়।বরং দেশের স্থায়ী প্রগতির পথে প্রধাণ বাধা।” 

 

সম্পর্কিত লেখা


আরও পড়ুন